ধর্মান্ধ বিজেপি সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প ছড়াচ্ছে এনআরসি/ক্যাব এর নামে যেকোন প্রকার পুশইন করার অপচেষ্টা বাংলার জনগণ বরদাস্ত করবে না : কমরেড ডাঃ এম এ সামাদ

আজ ১৭ ই ডিসেম্বর সকাল ১১ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী)-সিপিবি(এম) এর উদ্যগে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় ভারতে বিজেপি সরকার কর্তৃক এনআরসি/ক্যাব এর নামে ধর্মীয় বিষবাষ্প ছড়ানো ও ১৯ লক্ষ বাংলাভাষাভাষী ভারতীয় নাগরিক কে বাংলাদেশে পুশইন করার অপচেষ্টার প্রতিবাদে। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী)র কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক কমরেড ডাঃ এম এ সামাদ অতিথি বক্তা হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা কমরেড হারুন চৌধুরী সমাজতান্ত্রিক মজদুর পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড ডাঃ সামছুল আলম ও কেন্দ্রীয় নেতা মাষ্টার আনোয়ার সাম্যবাদী দলের কেন্দ্রীয় নেতা কমরেড আবু মাসুম কমিউনিস্ট পার্টি মার্কবাদীর কেন্দ্রীয় নেতা ও নারায়নগন্জ জেলা কমিটির সভাপতি কমরেড সামছুল হক সরকার কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা কমরেড অধ্যাপক হাবিবুল ইসলাম বসুনিয়া কেন্দ্রীয় নেতা কমরেড মোস্তফা আল খালিদ প্রমূখ। সভাপতির বক্তব্য সিপিবি(এম) সাধারণ সম্পাদক কমরেড ডাঃ এম এ সামাদ বলেন বিজেপি সরকার মুলত মুসলমানদের টার্গেট করেছেন নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল এনআরসি/ ক্যাব পাশ করে ধর্মীয় বিষবাষ্প ছড়াচ্ছে এতে পুরো দক্ষিন এশিয়া অস্থিতিশীল হয়ে পড়বে আমাদের সকলের একযোগে প্রতিবাদ জানানো উচিৎ কারন এর খেসারত বাংলাদেশকেও দিতে হবে ১৯ লক্ষ বাংলাভাষী ভারতীয় নাগরিক কে বাংলাদেশে পুশইন করার ষড়যন্ত্র চলছে যা বাংলাদেশের জনগণ কখনো হতে দিবে না মেনে নিবে না প্রতিরোধ করবে। কমরেড সামাদ আর ও বলেন বর্তমান সরকার ভারতের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে তারা ভারতের সহায়তায় ক্ষমতায় টিকে থাকতে চায় সরকার বুঝতে পেরেছে সরকারের পায়ের নীচে কোন মাটি নেই তাই সরকার নিশ্চুপ সরকার নিঃশ্চুপ হলেও জনগন ঘরে বসে থাকবে না। তিনি ভারতীয় এই আগ্রাসন ধর্মীয় বিষবাষ্প ও পুশইন করার অপচেষ্টার বিরুদ্ধে রাজপথে নেমে আসার আহব্বান জানান সমাশেষ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিল শেষে পার্টি অফিসের সামনে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য তিনি সরকারকে হুসিয়ারী দিয়ে বলেন অবিলম্বে কার্যকর ব্যবস্হা গ্রহন করুন নইলে জনগনকে সংগে নিয়ে বৃহওর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে তখন কোন কিছুই সরকারের নিয়ন্ত্রনে থাকবে না সরকার বিদায় নিতে বাধ্য হবে।