জাতীয় শোক দিবসে বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের বিভিন্ন কর্মসূচি পালন


লায়ন সালাম মাহমুদ : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস- ২০১৭ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদ ১৫ আগস্ট দিনব্যাপী বিস্তারিত কর্মসূচি পালন করেছে।
১৫ আগস্ট ভোরে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও সংগঠনের পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারণ, সকাল ৮.০০টায় বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি লায়ন মো. গনি মিয়া বাবুল এর নেতৃত্বে ৩২ ধানমন্ডিস্থ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ, শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। সকাল ১১.০০টায় সংগঠনের কেন্দ্রীয় কার্যালয় ৫১/এ, পুরানা পল্টন (৯ম তলা), পল্টন সিটি ভবনে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি লায়ন মো. গনি মিয়া বাবুল এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ সাংবাদিক অধিকার ফোরামের মহাসচিব আতাউর রহমান, সংগঠনের সহ সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. নুরুল ইসলাম তালুকদার, প্রচার সম্পাদক এডভোকেট খান চমন-ই-এলাহী, নির্বাহী সদস্য মো. মাসুদ আলম, এস.এম আজাদ হোসেন, সাধারণ সদস্য জহিরুল হক বশির, আতিক শাহ, রুর‌্যাল জার্নালিস্ট ফাউন্ডেশন- আরজেএফ চেয়ারম্যান এস.এম জহিরুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু একাডেমির মহাসচিব হুমায়ুন কবির মিজি প্রমুখ।
আলোচনা শেষে ১৫ আগস্টের শহীদদের আত্মার মাগফেরাত ও দেশ-জাতির সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
আলোচনা সভায় লায়ন মো. গনি মিয়া বাবুল বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে ৯ মাসের সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে আমরা অর্জন করেছি স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। কিন্তু পরিতাপের বিষয় স্বাধীনতা লাভের মাত্র সাড়ে ৩ বছরের মধ্যে জাতি হারিয়েছে তার পিতা ও দেশের স্থপতিকে। পরবর্তী দীর্ঘ সময় দেশে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার চেতনা ছিল ভূলুন্ঠিত। ফলে দেশের উন্নয়ন-অগ্রগতি, মানবাধিকার ও প্রত্যাশিত সুশাসন ছিল অনুপস্থিত। বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ করছে। ফলে দেশ দ্রুত উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ, জাতীয় সম্পদ এবং সকল বিতর্কের ঊর্ধ্বে। বঙ্গবন্ধুর চর্চা বাড়ানোর পাশাপাশি তার আদর্শ সকলের অনুসরণ ও অনুকরণ করা আবশ্যক।
দুপুরে বায়তুল মোকাররমের দক্ষিণ গেটে দুঃস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়। এছাড়া ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে পোস্টার প্রকাশ করা হয়।
বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের মাসব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে উপরিউক্ত কার্যক্রম ছাড়াও ‘চেতনায় বঙ্গবন্ধু’ নামে একটি স্মরণিকা প্রকাশিত হবে।