গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যানের ছেলে জামায়াত কর্মী

নিজস্ব প্রতিবেদক:

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান এবিএম নুরুল ইসলামের ছেলে ইয়াহিয়া ইসলাম সৈকত ছাত্র শিবিরের একজন একনিষ্ঠ কর্মী আর তার বাবা স্থানীয় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পক্ষে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী।

এবিএম নুরুল ইসলাম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার জন্য ইতিমধ্যে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরমও সংগ্রহ করেছেন।

তার সুযোগ্য সন্তান সৈকত দীর্ঘদিন যাবৎ গোয়ালন্দ উপজেলা এলাকায় জামায়াত-শিবিরের সদস্য সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত রয়েছে। এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন মসজিদ ও নির্জন এলাকায় তাদের নিয়ে গোপন মিটিং করে থাকে। যা নিয়ে এলাকার লোকজন কানাঘুষা করতে থাকে। সৈকতের বাবা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হওয়ায় ভয়ে কেউ কিছু বলতে চায় না।

জানা যায়, তৃতীয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তৎকালীন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসান ইমামের বিরুদ্ধে বিএনপি-জামায়াতের সমর্থন নিয়ে এবিএম নুরুল ইসলাম নির্বাচনে অংশগ্রহন করে পরাজিত হয়েছিলেন।

পরবর্তিতে, ৪র্থ উপজেলা নির্বাচনে গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ নুরুল ইসলাম মন্ডলের হাত ধরে আওয়ামী লীগের সমর্থনে নির্বাচনে অংশগ্রহন করে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

এবিএম নুরুল ইসলাম আওয়ামী লীগের সমর্থনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেও বিএনপি-জামায়াতের সাথে যোগাযোগ নিবিড় যোগাযোগ রক্ষা করে চলেন তার ছেলে ইয়াহিয়া ইসলাম সৈকতের মাধ্যমে।

এবিএম নুরুল ইসলাম স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সাথে কোন প্রকার যোগাযোগ রক্ষা করেন না। তিনি জামায়াত-বিএনপি’র লোকজন নিয়ে নিজের আখের গোছোতে ব্যস্ত রয়েছেন। যে কারণে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে কেন্দ্র ঘোষিত তৃণমুল থেকে সুপারিশ করে ৩ (তিন) জনের নাম পাঠানোর সময় এবিএম নুরুল ইসলাম মাত্র ১০ ভোট পেয়েছেন।

এলাকায় প্রচার রয়েছে এবিএম নুরুল ইসলাম আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন না পেলে বা আওয়ামী লীগের সমর্থন না পেলেও সতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করবেন।